Help my friend Anirban Chandra Narayan Chowdhury fight liver cirrhosis | Milaap
Help my friend Anirban Chandra Narayan Chowdhury fight liver cirrhosis
39%
Raised
Rs.392,598
of Rs.1,000,000
176 supporters
  • SG

    Created by

    Sankhanil Ghosh
  • AC

    This fundraiser will benefit

    Anirban Chandra Narayan Chowdhury

    from 1/66 Netaji Nagar, Kolkata-700092

Anirban is currently an unemployed engineer who takes care of his widowed mother. He is suffering from a critical liver ailment which demands immediate transplantation of the vital organ. He does not have the resources needed for this expensive medical procedure. Anirban is a sensitive and kind person liked by everyone he knows. His survival and recuperation is absolutely necessary for his mother's physical and emotional well-being. At the age of 64 she has her own set of health complications while remaining the voracious reader of Bengali literature she always was. Anirban's friends have already raised some amount for his quick and smooth treatment. But the expenditure is steep. Maximum number of contributions are solicited, irrespective of how big or small each donation is. Anirban and his mother dealt with the sudden demise of Anirban's father and other problems of ordinary middle-class existence with dignity. They created an atmosphere of empathy and mutualism at their home. Their home remains one of the most hospitable places on this planet. Friends and acquaintances are - even strangers if they are not violent and willing to talk - always welcome and they immediately feel at home. Anirban's situation is not unique in the society we live in - and surely one can raise the question: why specifically help him? Well, we have to begin somewhere. And the home that Anirban and his mother has sustained is a certainly good place to begin. Please forward this message to as many persons as you can. Documentary evidence accompanies this message.

এই মুহূর্তে অনির্বাণ একজন চাকরিহীন প্রকৌশলী যে তার বয়স্কা বিধবা মা-কে দেখাশোনার ভার সামলাচ্ছে। পাকস্থলীর জটিল রোগে ভুগে গুরুত্তপূর্ণ দেহাংশটির প্রতিস্থাপন অনিবার্য হয়ে পড়েছে তার। এই ব্যয়বহুল চিকিৎসাপ্রক্রিয়া অনির্বাণের সাধ্যের বাইরে। সংবেদনশীল এবং নম্র ৩৫ বছরের অনির্বাণ-কে পছন্দ করে না এমন মানুষ তার চেনাজানার বৃত্তে নেই। ওর জীবিত ও সুস্থ থাকা ওর মা-র সার্বিক মঙ্গলের জন্যে অত্যন্ত জরুরি। ৬৪ বছর বয়সে তিনি নানা স্বাস্থ্যগত জটিলতায় ভুগলেও সাহিত্যের তন্ময় পাঠিকা আজও। অনির্বাণের বন্ধুরা ইতিমধ্যেই কিছু অর্থ জড়ো করেছে তার দ্রুত ও মসৃণ নিরাময়ের জন্যে। কিন্তু খরচা আকাশচুম্বী। সর্বাধিক সংখ্যায় দান কাম্য, একেকটি সাহায্যের পরিমাণ বেশী কম যা হোক না কেন। অনির্বাণ ও তার মা অনির্বাণের বাবা-র আকস্মিক মৃত্যু ও অন্যান্য সাধারণ মধ্যবিত্তের সমস্যার সাথে জুঝেছেন বিনম্র ভাবে। তাদের বাড়িতে একটা সহানুভূতি ও পারস্পরিকতার বাতাবরণ লক্ষণীয়, অতিথিবাৎসল্যের জন্যে তারা সুবিদিত। বন্ধু, পরিচিত, এমনকি অহিংস ও সংলাপে আগ্রহী আগন্তুক-ও সেই বাড়িতে আপ্যায়িত হয়। অনির্বাণের করুণ পরিস্থিতি পুরোপুরি বিশিষ্ট নয় আমাদের সমাজে ও সময়ে, তাহলে প্রশ্ন উঠতেই পারেঃ অনির্বাণকেই সাহায্য করতে হবে কেন? কোথাও তো একটা শুরু করতে হয়, কি? অনির্বাণ ও তার মা যে বাসাটা ধরে রেখেছেন তা নিশ্চিতভাবেই শুরু করার জন্যে একটি আদর্শ স্থান। এই বার্তা যত জন মানুষের কাছে পারেন পৌঁছিয়ে দিন। সমস্ত প্রামাণ্য দলিল বার্তার সাথে সংলগ্ন।

Regards
Shankhanil Ghosh





Read More

Know someone in need of funds for a medical emergency? Refer to us
support